ঘরে বসে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে চান? কিভাবে শিখবেন দেখুন

টাইটেল দেখেই হয়ত বুঝ গেছেন যে আজ কি নিয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছি। চলুন শুরু করা যাক।।

বর্তমান গ্রাফিক্স ডিজাইনার একটি অতি সম্মানজনক পেশা। একটু সময় দিয়ে প্রফেসনাল গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে ঘরে বসেই একটি মোটা অংকের টাকা ইনকাম যায়। তাছাড়া বর্তমানে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে গ্রাফিক্স ডিজাইনের চাহিদা প্রচুর। এছাড়াও অফলাইনেও গ্রাফিক্স ডিজাইন এর জন্য অনেক জব আছে যার সেলারি মিনিমাম ১৬০০০ থেকে ৮০০০০ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।
তবে প্রফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইনের হয়ে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস থেকে মাসে মিনিমাম ১ লাখ টাকার উপরে আয় করা যায়।
কি অবাক হয়ে যাচ্ছেন?
চলুন আপনাদের কিছু ইনকামের সেক্টর দেখিয়ে দিই…………….

ডিজাইন প্রতিযোগিতা: শুধুমাত্র বিভিন্ন ডিজাইন

প্রতিযোগীতাতে অংশগ্রহণ করে আয় করা যায় এরকম অনেক

মার্কেটপ্লেস রয়েছে। এসব মার্কেটপ্লেসে কোন বায়ার তাদের

প্রয়োজনীয় ডিজাইন যোগাড় করার জন্য প্রতিযোগিতার

আয়োজন করে।
প্রতিযোগীতাতে অংশগ্রহনকারী যে ডিজাইনারের ডিজাইন

পছন্দ হবে, নির্দিষ্ট সময় শেষে তাকে পুরস্কৃত করা হয়।
সাধারণত ৩০০ডলার থেকে ১২০০ডলার পযন্ত পুরস্কার দেওয়া

হয়। নতুনদের জন্য লোগো ডিজাইন প্রতিযোগিতা দিয়েই শুরু

করা যেতে পারে।
এরকম বিখ্যাত সাইটের নাম: 99designs.com

ডিজাইন বিক্রি: কিছু মার্কেটপ্লেস আছে, যেখানে নিজের

করা ডিজাইন জমা রাখা যায়। সেখানে বিভিন্ন বায়ার এসে

তাদের পছন্দ অনুযায়ি ডিজাইনটি কিনে থাকে। একটা

ডিজাই্ন একের অধিক যতবার ইচ্ছে বিক্রি হতে পারে। অর্থাৎ

আপনার একটা ডিজাইন অনেকবার বিক্রি হয়ে আপনাকে

এনে দিচ্ছে বসে বসে ইনকাম। আপনার কিরকম প্রোডাক্ট

আপলোড করেছেন, সেটির উ্পর ইনকামের পরিমান নির্ভর

করে। অনেকেই বিজনেস কার্ড ডিজাইন করে আপলোড দিয়ে

থাকে।
এরকম বিখ্যাত সাইটের নাম: graphicriver.net

বিড করে কাজ যোগাড়: অনেক মার্কেটপ্লেস রয়েছে

যেখানে বায়ার তার কাজে বর্ণনা করে টিউন করে।

ফ্রিল্যান্সাররা সেখানে কাজটি করতে চেয়ে আবেদন করে,

যাকে বিড করা বুঝায়। এখানে পোর্টফলিও শক্তিশালী না থাকার

কারনে নতুনদের জন্য কাজ পাওয়াটা কষ্টদায়ক হয়ে থাকে।

নতুন অবস্থাতে ভাল ইনকাম না হলেও একসময় মাসে ১-

২লাখ টাকা ইনকামও সম্ভব।
এরকম বিখ্যাত সাইটের নাম: upwork.com

গিগ বিক্রির মাধ্যমে আয়: ফ্রিল্যান্সাররা তাদের সার্ভিসের

কথা উল্লেখ করে রাখে যাকে গিগ বলে। এসব গিগ পড়ে বিভিন্ন

বায়ার তাদের পছন্দ অনুযায়ি অর্ডার দিয়ে থাকে। একটা

গিগেই হাজার হাজার বার অর্ডার আসতে পারে। বিড করার

জন্য টেনশন করতে হয়না।

২০,০০০টাকা – ১লাখ টাকা ইনকাম সম্ভব।
এরকম বিখ্যাত সাইটের নাম: fiverr.com

এছাড়াও আরো অনেক রকম ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলো

থেকেও অনলাইনে আয় করা সম্ভব হয়।
যেমন: টি-শার্ট কিংবা অন্যান্য গিফট আইটেম ডিজাইন করে

সেগুলোর বিক্রি থেকেও ভাল আয় করার মত অনলাইনে সাইট

রয়েছে।

কিভাবে শিখবেন গ্রাফিক্স ডিজাইন?

<ট্রেনিং সেন্টারঃ ভাবছেন যে কোন ট্রেইনিং সেন্টার এ গিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখবেন আর হাজার হাজার ডলার ইনকাম করবেন। তাহলে আমি বলব আপনি ভুল করছেন। কারন বর্তমানে বাংলাদেশের কোয়ালিটি সম্পন্ন ট্রেইনিং সেন্টার খুবই কম । ট্রেইনিং সেন্টার গুলোতে সুধু বেসিক কিছু ডিজাইন শিখানো হয় আর মার্কেটপ্লেস এ একটি একাউন্ট খুলে দেওয়া হয়। খোজ নিয়ে দেখা গেছে বেশীরভাগ ট্রেইনিং সেন্টার এর ট্রেইনার রাই মার্কেটপ্লেস এ সফল না এইজন্যই তারা ট্রেইনিং সেন্টার ব্যবসা খুলে বসেছে। <> তবে সব ট্রেইনিং সেন্টার এমন না। সবাকে আমি এমন খারাপ রিভিউ দিব না।
যেসব ট্রেইনিং সেন্টার গুলোতে প্রফেশনাল ভাবে শিখানো হয় দেখা গেছে সেসবে খরচ অনেক বেশী হয়ে যায় এবং প্রতিদিন ট্রেইনিং সেন্টার এ গিয়ে শিখা সম্ভব হয় না। অথবা ট্রেইনিং সেন্টার টি অনেক দূরে হয়ে যায়।

ইউটিউব বা গুগলঃ এখন ভাবছেন যে ইউটিউব আর গুগল ত আছেই। হ্যা ভাল আইডিয়া। অনেকেই সফল হয়েছেন শুধু ইউটিউব আর গুগল ঘাটাঘাটি করে। তবে এতে প্রচুর পরিমাণ হার্ডওয়ার্ক করতে হয় এবং প্রচুর রিসার্স করতে হয়। এতে আপনার নেট খরচ কেমন হবে তা চিন্তা করে দেখবেন। তবে যদি আপনার নেট এর কোন সমস্যা না থাকে এবং প্রচুর ধর্য ও হার্ডও্যার্ক করতে পারেন তাহলে এখনেই শুরু করে দিন ঘাটাঘাটি আর হয়ে যান গ্রাফিক্স ডিজাইনার।

ডিভিডিঃ নেট খরচ চালাতে পারবেন না বা এত রিসার্চ করতে পারবেন না বা সঠিক গাইডলাইন দরকার তাহলে ডিভিডি কিনে শুরু করতে পারেন গ্রাফিক্স শিখা । তবে বাংলাদেশের ডিভিডি গুলোত প্রফেসনাল না। আপনি ইংরেজী ডিভিডি কিনে শিখতে পারেন অগুলো অনেক ভাল মানের হবে। বাট অনেকের সমস্যা হল যে ইংরেজী কম বুঝেন । সাজেস্ট করব যারা ইংরেজী কম বুঝেন তারা কিনবেন না। অথবা ইংলিশ স্কিল ডেভেলপমেন্ট করুন আপনার। এতে অনেক ভাল হবে পরবর্তিতে।

উপরের কোন রাস্তায় আপনার শিখা সম্ভব না?
তাহলে শিখবেন কিভাবে?


হ্যা শিখতে পারবেন ।
কোন চিন্তা নাই। যদি নাই শিখতে পারেন তাহলে আমার এত কস্ট করে এই ব্লগ টী লিখার কি দরকার ছিল।

আপনি শিখতে পারেন ডিভিডি কিনে । ইংলিশ না বাংলা ডিভিডি থেকে শিখতে পারবেন।
বাংলাদেশের অনেক ডিভিডি ঘাটাঘাটি করে দেখলাম হাসান যুবায়ের আল ফাতাহ ভাইয়ের সম্পুর্ন গ্রাফিক্স ডিজাইন প্যাকেজ ডিভিডি থেকে প্রফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে পারবেন।
কেন নিবেন হাসান যুবায়ের ভাই এর ডিভিডি এই বিষয়ে জানতে চাইলে এই পোস্ট টি দেখতে পারেন

যাই হোক ভাল থাকবেন দেখা হবে পরবর্তী কোন পোস্ট এ।
পোস্ট এর ভুল ভ্রান্তি ক্ষমার চোখে দেখবেন।

Leave a comment

MH Naeem
 

Click Here to Leave a Comment Below 0 comments

Leave a Reply: